এ যেন ঠান্ডা মাথার বিএসএফ এর নিরব কিলিং মিশন

ডেইলি বিডি টাইমস ডেস্কঃ শুধু জুলাই মাসেই ৫ জন বাংলাদেশীকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ সদস্যরা। এর মধ্যে চারজনই গুলিতে নিহত। অন্য একজনকে পাথর মেরে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।এ যেন ঠান্ডা মাথার নিরব কিলিং মিশন।তাদের অত্যাচার আর আমাদের নিবরতা দেখলে মনে হয় যেন কোন এক ভালবাসার টানে সব কিছু মাথা পেতে নিচ্ছি আমরা।
গুলি বন্ধের প্রতিশ্রুতি যেন ফাঁকা বুলি ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের পক্ষ থেকে বারবার বাংলাদেশ সীমান্তে গুলি বন্ধের কথিত প্রতিশ্রুতি দেয়ার পরও প্রতিনিয়ত নিরস্ত্র বাংলাদেশীদেরকে গুলি করে হত্যা করছে বাহিনীটি।উল্টো চলতি বছরের সাত মাসেরও কম সময়ে সীমান্তে মোট ২১টি হত্যা এবং ১৮টি অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। গত দশ বছরে হত্যার সংখ্যা ৬৮৪।
১০ বছরে ৬৮৪ হত্যাকা- এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০০৬ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত বিগত ১০ বছরে ৬৮৪ জন বাংলাদেশীকে হত্যা করেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষীরা। অবশ্য গত ২৯ মে জাতীয় সংসদে এক সদস্যের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছিলেন, এ সময়ের মধ্যে বিএসএফের হাতে নিহত বাংলাদেশীর সংখ্যা ৫৯১ জন। এসব হত্যাকা-ের মধ্যে কিশোরী ফেলানির মতো আলোচিত হত্যাকা-ও রয়েছে।গুলি বন্ধের প্রতিশ্রুতি ফাঁকা বুলি বাংলাদেশ ভারত সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী সর্বোচ্চ সংযত আচরণ করবে ভারতের দিক থেকে এমন আশ্বাস বহুবার দেয়া হলেও সেটি তেমন একটা কাজে আসেনি।
২০১৪ সালে ভারতে অনুষ্ঠিত দুই দেশের স্বরাষ্ট্রসচিব পর্যায়ের বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জোরালোভাবে সীমান্ত হত্যার ইস্যুটি তুলে ধরা হয়। এর আগেও একাধিকবার আগেও বাংলাদেশের সীমান্ত বাহিনী বিজিবির পিলখানাস্থ সদর দফতরে আয়োজিত ‘সীমান্ত সম্মেলন’-এ সীমান্ত হত্যার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেছিল বিজিবি। এসব বৈঠকে সীমান্তে গুলি ও হত্যা বন্ধে যৌথ পদক্ষেপ নেয়া প্রতিশ্রুতি ভারতের পক্ষ থেকে দেয়া হলেও এরপরে শতাধিক বাংলাদেশীকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। সীমান্তে সব আইন ও অধিকার লঙ্ঘন করছে বিএসএফ নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও মানবাধিকার সংগঠকদের মতে,
বিএসএফের কারণেই হচ্ছে সীমান্ত হত্যা। দু’দেশের মধ্যে সমঝোতা এবং এ সম্পর্কিত চুক্তি অনুযায়ী, যদি কোনো দেশের নাগরিক অনুনোমোদিতভাবে সীমান্ত অতিক্রম করে, তবে তা অনুপ্রবেশ হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার কথা এবং সেই মোতাবেক ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে বেসামরিক কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরের নিয়ম রয়েছে। কোনো নিয়মের তোয়াক্কা না করে কোন সমঝোতা এবং চুক্তি না মেনে বিএসএফ সীমান্তে নিরস্ত্র বাংলাদেশীদের গুলি করে হত্যা করছে ও অপহরণ করে নিয়ে যাচ্ছে। যা আন্তর্জাতিক আইন ও মানবাধিকারের লঙ্ঘন এবং বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি হুমকিস্বরূপ।

Leave a Reply

Go Top
%d bloggers like this: