‘চালুনি সূঁচেরে বলে তোর পাছায় কেন ছেদা ?’

তির ছেড়ে দিলে ফিরে আসে না: শেখ হাসিনা

মন্ত্রিসভার বৈঠকে দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। টিআর ও কাবিখা প্রকল্পে চুরির জন্য সংসদ সদস্যসহ জনপ্রতিনিধি ও আমলাদের দায়ী করে বক্তব্য দেয়ার পর সোমবার লিখিত দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি। এ সময় তথ্যমন্ত্রী বক্তব্য পড়ে শোনানোর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘তির ছেড়ে দিলে এবং মুখের কথা বেরিয়ে গেলে ফিরে আসে না’।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্য বলেন, মন্ত্রিসভার নিয়মিত আলোচ্যসূচি শেষ হওয়ার পর তথ্য মন্ত্রণালয়ের লোগোসংবলিত একটি খাম মন্ত্রিসভার সদস্যদের টেবিলে পৌঁছে দেন তথ্যমন্ত্রী। খামের ভেতরে একটি বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়, যার শিরোনাম ছিল ‘তথ্যমন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশ’।
এতে তিনি বলেছেন, টিআর-কাবিখা প্রসঙ্গে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে কোনো বিভ্রান্তি বা ভুল বোঝাবুঝি হলে বা কেউ দুঃখ পেয়ে থাকলে তা অনভিপ্রেত।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি নিজে একজন সংসদ সদস্য হিসেবে মাননীয় সংসদ সদস্যবৃন্দসহ সকল জনপ্রতিনিধিদের আন্তরিকভাবে সম্মান করি। এই সম্মান অক্ষুণ্ন রয়েছে। তারপরও কেউ যদি অনভিপ্রেতভাবে দুঃখ পেয়ে থাকেন, তাহলে আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’
বৈঠক সূত্র জানায়, তথ্যমন্ত্রী এই বক্তব্য পড়ে শোনানোর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্তব্য করেন যে ‘তির ছেড়ে দিলে এবং মুখের কথা বেরিয়ে গেলে ফিরে আসে না’।
সূত্র বলছে, তথ্যমন্ত্রী নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেয়ার চেষ্টা করলে এ সময় কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, এভাবে বলিনি—এটা বলার কোনো সুযোগ নেই। যখন রেকর্ড দেখাবে, তখন কী বলবেন? এ সময় শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, ‘২০০৯ থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। এক ছটাক গম খেয়েছি—এ কথা কেউ বললে ও প্রমাণ করলে পদত্যাগ করব। এভাবে সবাইকে চোর বানানো ঠিক হয়নি। এ কথা বলে তিনি (তথ্যমন্ত্রী) সবাইকে ডুবিয়ে দিয়েছেন।’
বৈঠকে তথ্যমন্ত্রীর বক্তব্যে মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যরাও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
প্রসঙ্গত, গতকাল রোববার ঢাকায় পল্লী কর্ম–সহায়ক ফাউন্ডেশনের এক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী টিআর-কাবিখা নিয়ে সংসদ সদস্যদের প্রসঙ্গ তুলে কথা বলেন।
নতুন বার্তা

Leave a Reply

Go Top
%d bloggers like this: