যুক্তরাষ্ট্রে কোন ধর্মকেই নিষিদ্ধ করবো না : হিলারি

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ হিলারি…হিলারি স্লোগানে প্রকম্পিত হচ্ছে ফিলাডেলফিয়া। সেখানে চলছে যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্রেটিক পার্টির ন্যাশনাল কনভেনশন। এই সম্মেলনে তার ঐতিহাসিক ভাষণে হিলারি বলছেন, আমরা আমেরিকান। আমরা সবাই মিলে একটি শক্তি। আমাদের সকল সমস্যা আমরা সবাই মিলে সমাধান করবো। আমেরিকা কখনো এমন কোনও দেশ হবে না যেখানে এক শতাংশ মানুষের হাতে ক্ষমতা থাকবে। আমরা কোন ধর্মকেই নিষিদ্ধ করবো না। আমরা সকল আমেরিকান একসঙ্গে কাজ করবো।

ওদিকে, ১৯৭১ সালের বসন্তে এক মেয়ের সঙ্গে দেখা হয়েছিল আমার। সেই মেয়েটিই হিলারি। আর আমি আমার জীবনের সেরা বন্ধুটিকেই বিয়ে করেছি। ১৯৯২ সালে বিল ক্লিনটনকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বানাতে মাঠে নেমেছিলেন স্ত্রী হিলারি ক্লিনটন। ২৪ বছর পর হিলারির পক্ষে ভোট চাইতে গিয়ে এভাবেই বক্তব্য শুরু করেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন। ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মনোনয়নের জন্য ডেমোক্রেট কনভেনশনে তিনি বলেন, হিলারি আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। তাকে ভোট দিয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করুন। হিলারির গুণগান গেয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সমস্যা সমাধানে হিলারির কোনো তুলনা হয় না। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে হিলারির ইতিহাস গড়ার দিন ক্লিনটন ফিরে গেলেন ৪৫ বছর পেছনে। প্রায় ৪০ মিনিটের দীর্ঘ আবেগপূর্ণ বক্তৃতায় ক্লিনটন হিলারির সঙ্গে তার পরিচয় তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের বসন্তে এক মেয়ের সঙ্গে দেখা হয়েছিল আমার। সেই মেয়েটিই হিলারি। ৬৯ বছর বয়সী বিল ক্লিনটন বলেন, আর আমি আমার জীবনের সেরা বন্ধুটিকেই বিয়ে করেছি। ইয়েল ল স্কুলে পরিচয়ের পর থেকে প্রায় ৪৬ বছরের দীর্ঘ এক জীবন পার করেছেন এ দম্পতি।

সরকারি কাজের প্রতি সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারির দায়িত্বশীলতার কথা তুলে ধরে ক্লিনটন বলেন, আমি আশা করি, আপনারা তাকে নির্বাচিত করবেন। এর কয়েক ঘণ্টা আগেই তার স্ত্রী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ডেমোক্রেট দলের আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন পান। গত সপ্তাহে রিপাবলিকান দলের মনোনয়ন পেয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি এ দুটি বিষয়কে তুলনা করেন এভাবে ওয়ান ইজ রিয়েল এবং দি এনাদার ইজ মেড আপ। এ সময় দর্শক সারিতে উপস্থিত ছিলেন কন্যা চেলসি ক্লিনটন ও তার স্বামী মার্ক মেজভিনস্কি। তারা বারবারই হাততালি দিয়ে, উঠে দাঁড়িয়ে বাবার বক্তব্যে সমর্থন দিচ্ছিলেন। এক টুইট বার্তায় হিলারির স্বামী ও যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন হিলারিকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, তোমার জন্য খুবই গর্বিত। সম্মেলনে প্রতিনিধিদের রোল কল ভোট শেষে দলীয় ঐক্যের প্রতীক হিসেবে হিলারি ক্লিনটনের সাবেক প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্স মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে হিলারি ক্লিনটনকে আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন দেয়ার আহ্বান জানান। এর আগে সম্মেলনের প্রথমদিনে স্যান্ডার্সের সমর্থকরা হিলারি ক্লিনটনের মনোনয়নের বিরুদ্ধে দুয়োধ্বনি দিয়ে সম্মেলনে বিঘ্ন ঘটান।

এই কনভেনশনে হিলারি ক্লিনটনের প্রার্থিতা নিয়ে ডেমোক্রেটিক পার্টিতে স্পষ্ট বিভক্তি ফুটে উঠতে দেখা গেছে। এদিকে, সম্প্রতি ডেমোক্রেটিক পার্টির জাতীয় কমিটির কর্মকর্তাদের ই-মেইল ফাঁসের জন্য রুশ গোয়েন্দা সংস্থার হাত আছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গোয়েন্দা সন্দেহের ভিত্তিতে এর তদন্তের ঘোষণা দিয়েছে এফবিআই। মস্কো এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে। ডেমোক্রেট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের প্রচার শিবির থেকে বলা হচ্ছে, দলে বিবাদ ঘটিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সহায়তার জন্য এই ই-মেইল ফাঁস করা হয়েছে। প্রেসিডেন্ট প্রার্থী চূড়ান্ত করতে ফিলাডেলফিয়ায় ডেমোক্রেটদের সম্মেলন শুরুর ঠিক আগেই শুক্রবার দলটির শীর্ষ নেতাদের ২০ হাজারের মতো ফাঁস হওয়া ই-মেইল উইকিলিকসে আসে। এসব ই-মেইলে ডেমোক্রেট প্রেসিডেন্ট পদের প্রার্থী বাচাইয়ের প্রাথমিক পর্বে প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্সের তুলনায় হিলারির প্রতি পক্ষপাতিত্ব করা হয়েছে দেখানোর চেষ্টা লক্ষ্য করা যায়। এ ঘটনার পর চাপের মুখে রোববার ডিএনসি চেয়ারম্যান ডেবি ওয়াজেরম্যান শুলজ পদত্যাগও করেছেন।

সূত্রঃ বিবিসি, রয়টার্স ও এএফপি।

Leave a Reply

Go Top
%d bloggers like this: