ভারতের রাস্তা ব্যবহার করতে পারবে বিজিবি

ভারতের অভ্যন্তরে দূরবর্তী এলাকাগুলোতে টহল দেয়ার জন্য দেশটির রাস্তা ব্যবহার করতে পারবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। রোববার বিকেলে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।
এদিন দুপুরে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সম্প্রতি ভারতের রাজধানী দিল্লিতে ভারত-বাংলাদেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে দুই দেশের বৈঠক শেষে দেশে ফিরে গণমাধ্যমে বিফ্রিংকালে এ কথা জানান মন্ত্রী।

ভারতের রাস্তা ব্যবহার করতে পারবে বিজিবি। তাহলেতো বাংলাদেশের রাস্তাও ব্যবহার করতে পারবে বিএসএফ ! এই সংবাদটি কিন্তু পত্রিকাটি উল্লেখ করে নাই অথবা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও কিছু বলেন নাই।  এর কারণ হতে পারে দু’টি।  এক- ভারত ইতিধ্যেই বাংলাদেশের স্থল, জল আকাশ পথ ব্যবহার করছে। তাই বিএসএফ বাংলাদেশে প্রয়োজনমতো ঢুকতে পারবে এটা নতুন খবর নয়।  দ্বিতীয়ত আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন শুধু জঙ্গি দমনে নয় বাংলাদেশের যে কোনো সমস্যা সমাধানে ভারত সহযোগিতা করতে পারবে। অর্থ্যাৎ বিএসএফ কেনো ভারতের যে কোনো বাহিনী সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশে আসতে পারবে।

দুই দেশের বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে দাবি করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি ভারত সরকারকে বলেছি। প্রতিদিন বাংলাদেশ থেকে শত শত মানুষ চিকিৎসা, ব্যবসা, ভ্রমণসহ নানা কাজে ভারতে যান। অনুরোধে সাড়া দিয়ে ভারত ভিসাসহজীকরনের আশ্বাস দিয়েছে। বিশেষ করে বয়স্ক এবং মুক্তিযোদ্ধাদের ভিসা সহজীকরণের ওপর বেশি গুরুত্ব দেবেন তারা। এটা দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।
বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে ভারত কী ধরনের সহযোগিতার করবে- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাস দমনে সব ধরনের সহযোগিতা করবে ভারত। শুধু জঙ্গি হামলা নয়, বাংলাদেশে যখন যা সহযোগিতার প্রয়োজন হবে ভারত সেব ক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে। জঙ্গিদমনে বাংলাদেশ একা নয়, পাশে ভারত আছে বলেও জানিয়েছেন ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

সাধারণ জনগণের প্রশ্ন হলো বাংলাদেশের সাথে ভারতের অসংখ্য অমীমাংসিত ইস্যু কি এর মধ্যে থাকবে ! না কি শুধু বাংলাদেশে ভারতীয় বাহিনী ঢুকার মধ্যেই এই সহযোগিতা সীমাবদ্ব থাকবে। তিস্তার পানি চুক্তিসহ ৫৩টি নদীর একচেটিয়া পানির প্রবাহ নিয়ন্ত্রণে ভারত কি সহযোগিতা করে তা দেখার অপেক্ষায় থাকলাম।
উৎসঃ বাংলামেইল২৪

Leave a Reply

Go Top
%d bloggers like this: