Warning: count(): Parameter must be an array or an object that implements Countable in /customers/4/a/c/dailybdtimes.com/httpd.www/wp-includes/post-template.php on line 284 Warning: count(): Parameter must be an array or an object that implements Countable in /customers/4/a/c/dailybdtimes.com/httpd.www/wp-includes/post-template.php on line 284 Warning: count(): Parameter must be an array or an object that implements Countable in /customers/4/a/c/dailybdtimes.com/httpd.www/wp-includes/post-template.php on line 284 Warning: count(): Parameter must be an array or an object that implements Countable in /customers/4/a/c/dailybdtimes.com/httpd.www/wp-includes/post-template.php on line 284

১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটের সামনে যুক্তরাজ্য বিএনপির বিক্ষোভ আজ

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও সাজানো মামলায় হাইকোর্টের দেয়া রায়ের প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সরকারী বাসভবন ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটের সামনে এক ব্যাপক বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করেছে যুক্তরাজ্য বিএনপি।

দুপুর ২টা থেকে সাড়ে ৩টা পর্যন্ত দেড়ঘন্টা ব্যাপী এ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে।

যুক্তরাজ্য বিএনপি কর্তৃক আয়োজিত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে সর্বস্তরের প্রবাসী বাংলাদেশীরা অংশ নিবেন বলে জানিয়েছেন যুক্তরাজ্য বিএনপি সভাপতি এম এ মালিক ও সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ ।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচির যোক্তিকতা প্রসঙ্গে যুক্তরাজ্য বিএনপি সভাপতি এম এ মালিক বলেন, গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের সুতিকাগার গ্রেট বৃটেন। এছাড়া যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অর্থনীতির অন্যতম অংশীদারও বটে । বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় রায় দিয়ে দেশটিকে ধ্বংসের শেষ প্রান্তে নিয়ে যাচ্ছে ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন শেখ হাসিনার অবৈধ সরকার । বর্তমান বিশ্বায়নের যুগে একটি দেশের রাজনীতি ও অর্থনীতি অন্যান্য ডেভেলপমেন্ট পার্টনারের সাথে সম্পর্কিত এবং একে অন্যের পরিপূরক। তাই বাংলাদেশের গণতন্ত্রহীন একদলীয় অবস্থা থেকে উত্তরণ ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় যুক্তরাজ্যকে অবশ্যই কার্যকরী ভূমিকা নিতে হবে।

বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচিতে ব্যাপক লোক সমাগম হবে বলে জানিয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমেদ বলেন, পূর্ব অনুমতি নিয়েই এ বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। অন্যায়, অবিচার ও জুলুম নির্যাতনের বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক দেশ গ্রেট বৃটেন থেকে আমরা প্রতিবাদ অব্যাহত রাখার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন । তিনি বলেন, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় বিএনপি’র দেশ বিদেশের নেতা কর্মীরা প্রস্তুত রয়েছে । এছাড়া যুক্তরাজ্য বিএনপি’র সকল জোনাল কমিটির নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সর্বস্তরের নেতা কর্মীকে আজকের বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত থাকার জন্য আহবান জানিয়েছেন।

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, ২০১৩ সালের ১৭ নভেম্বরে বিচার কার্যক্রম শেষে ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ মো. মোতাহার হোসেনের আদালত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বেকসুর খালাস দেন। ওই মামলার বিচারক মোতাহার হোসেন দেশের অনেক গুরুত্ত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর মামলায় রায় দিয়েছেন। তার মধ্যে জেএমবি কর্তৃক ৪ জন আইনজীবী হত্যা মামলায় দশ জেএমবি সদস্যের ফাঁসির রায়, সৌদি দূতাবাসের কর্মকর্তা খালাফ আল আলী হত্যা মামলার রায়, ইডেন কলেজের চাঞ্চল্যকর মিতু হত্যা মামলা, রমনা থানা মসজিদের ইমাম হত্যা মামলাসহ অনেক মামলার ঐতিহাসিক রায় দিয়েছেন তিনি।
কিন্তু সরকার এসব রায় ঘোষণার পর এই বিচারকরে বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। অথচ তারেক রহমানের ওপর যৌক্তিক রায় ঘোষণার পর উক্ত বিচারককে হয়রানির উদ্দেশ্যে অবৈধ সম্পদ অর্জনের নামে দুদক কর্তৃক তদন্ত শুরু করার প্রক্রিয়া গ্রহণ করে । এমনকি বিচারক মোতাহার হোসেন দেশ ছাড়তে বাধ্য হন। যা ছিল বিচার বিভাগের ওপর সরকারের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার অনেকগুলো পদক্ষেপের একটি অশুভ উদ্যোগ। এই ধরণের উদ্যোগ বিচারক ও সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতিদের ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা ও আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে। যার ফলাফল আজকের রায়ে প্রমাণিত হলো।

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রায় দেওয়া বেঞ্চের অন্যতম বিচারপতি এনায়েতুর রহিম ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও আওয়ামী লীগ ঘনিষ্ট বিচারপতি । তার পুরো পরিবার আওয়ামী লীগের । এনায়েতুর রহীমের ছোট ভাই ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ইকবালুর রহীম । তিনি বর্তমান সংসদের হুইপ এবং দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য।
বিচারপতি এনায়েতুর রহিম নিজেও ছাত্রলীগ করতেন। ১৯৮০-৮১ এবং ১৯৮১-৮২’র কাকসু নির্বাচনে পর পর দুই বার জাতীয় ছাত্রলীগের থেকে জিএস পদে নির্বাচিত হন এনায়েতুর রহিম। বিচারপতি এনায়েতুর রহিমের বাবা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আব্দুর রহিম শেখ মুজিবুর রহমানের একান্ত সহচর ছিলেন। বাকশাল গঠনের পর তিনি এর প্রভাবশালী নেতা হয়ে উঠেন। এমনকি বাকশাল বিলুপ্ত করে মুল আওয়ামী লীগ ফিরে গেলেও তিনি আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে আগের বাকশালেই থেকে যান। আব্দুর রাজ্জাকের বাকশাল বিলুপ্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি সেটার সেক্রেটারি ছিলেন । রহীম পরিবারের সাথে ঘনিষ্ট একজন জানান, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলীয় নেত্রী থাকা অবস্থায় দিনাজপুর এলাকায় দলীয় কাজে গেলে তাদের বাসায় উঠতেন ।

Leave a Reply

Go Top
%d bloggers like this: