“আয়ুব খান সরকারের আমলে অর্থ আত্মসাৎ মামলায় শেখ মুজিবের দুই বছরের কারাদণ্ড হয়েছিল”

ডেইলিবিডিটাইমস রিপোর্ট :  দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে কোনো শাস্তি হয়নি। বরং আয়ুব খান সরকারের আমলে দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনে শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে শাস্তি হয়েছিল। অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন আইন ১৯৪৭ বিধির ৫ (২) ধারায় শাস্তি হয়। অপরদিকে শেখ হাসিনার ব্যাংক ডাকাত সরকারের আমলে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে দণ্ডবিধির ১০৯ ও ৪০৯ ধারা অনুযায়ী। এ ধারায় করাপশনের চার্জ নয় বরং এ ধারায় রয়েছে ক্রিমিনাল ব্রিচ অব কন্ট্রাক্ট। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে ক্রিমিনাল ব্রিচ অব ট্রাস্টে। আইনজীবীরা বলছেন,এ ধারা দুটি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে প্রযোজ্য নয় কারণ খালেদা জিয়া এ মামলার কোনো অভিযোগের সঙ্গেই সম্পৃক্ত নন। ”জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট্রে কথিত দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে ব্যাংক ডাকাত সরকারের বিশেষ একটি আদালত। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নিম্ন আদালতের বিচারক শাস্তি ঘোষণা করেছে আগামী জাতীয় নির্বাচনে সামনে রেখে শেখ হাসিনাকে রাজনৈতিক সুবিধা দেয়ার অসৎ উদ্দেশ্যে।
বঙ্গকসাই শেখ হাসিনার পিত শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০ সালে সমাজকল্যাণ মূলক একটি প্রতিষ্ঠানের টাকা আত্মসাতের দায়ে দুর্নীতি দমন আইনে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত হয়েছিলেন। ওই মামলার রায়ের নথি থেকে জানা গেছে, পশ্চিম পাকিস্তান গভর্নরের অধীনে পরিচালিত ‘আরবান কমিনিউটি প্রজেক্ট এন্ড ভিলেজ এইড’ প্রতিষ্ঠানে শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৬ সালে ৭ সেপ্টেম্বরে নিয়োগ পান। অর্থ আত্মসাতের দায়ে তিনি ১৯৫৭ সালের ৭ আগস্ট পদত্যাগ করেন। অর্থ আত্মসাতে তার সহযোগী ছিলেন কাজী আবু নাসের।

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ওই সময় দুর্নীতি দমন আইন ১৯৪৭ বিধির ৫ (২) ধারায় শেখ মুজিব ও আবু নাসেরের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ১৯৬০ সালে এ মামলার রায়ে শেখ মুজিবুর রহমানকে ২ বছরের কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বিরুদ্ধে শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে ২০১৮ সালে যখন শেখ হাসিনা ক্ষমতায় অপরদিকে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের ‘আরবান কমিনিউটি প্রজেক্ট এন্ড ভিলেজ এইড’ এর কর্মকর্তা শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছিল ১৯৬০ সালে যখন আয়ুব খান ক্ষমতায়। আয়ুব খান যখন জোর করে পাকিস্তানের ক্ষমতা দখল করে ছিল তখন তার শ্লোগান ছিল ‘গণতন্ত্র নয়-উন্নয়ন’ । বর্তমানে জোর করে বাংলাদেশের ক্ষমতায় আয়ুব খানের মানসকন্যা শেখ হাসিনা। আয়ুব খানের মতোই বর্তমানে শেখ হাসিনার শ্লোগান ‘গণতন্ত্র নয়-উন্নয়ন’ ।

Leave a Reply

Go Top
%d bloggers like this: